রবিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২২, ১০:২৬ পূর্বাহ্ন

এবার গ্রাহক পর্যায়ে বিদ্যুতের দাম বাড়াতে চায় পিডিবিসহ তিন কোম্পানি

আউটলুকবাংলা রিপোর্ট:
  • প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ২৪ নভেম্বর, ২০২২
loadshedding energy crisis electricity power grid বিদ্যুত বিভ্রাট লোডশেডিং মেগাওয়াট
file pic

পাইকারি পর্যায়ে বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধির দুদিন পরই গ্রাহক পর্যায়ে দাম বাড়ানোর আবেদন করেছে বিতরণকারী তিন কোম্পানি। তারা গড়ে ১৯ দশমিক ৪৪ শতাংশ দাম বাড়ানোর আবেদন বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনের (বিইআরসি) কাছে জমা দিয়েছে।বিদ্যুতের দাম বাড়াতে বৃহস্পতিবার বিইআরসির কাছে আবেদন করা কোম্পানি তিনটি হলো—বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড (পিডিবি), ওয়েস্ট জোন পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানিসহ (ওজোপাডিকো) ও ঢাকা পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেডের (ডিপিডিসি)।

সম্প্রতি পাইকারি পর্যায়ে বিদ্যুতের দাম ১৯ দশমিক ৯২ শতাংশ বৃদ্ধি করা হয়। এরপরই বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর বিষয়ে বিতরণকারী তিন কোম্পানি আবেদন করল। তবে পাইকারি পর্যায়ে দাম বাড়ানোর পর বিদ্যুৎ ও জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ গ্রাহক পর্যায়ে বিদ্যুতের বাড়ানো হচ্ছে না বলে জানিয়েছিলেন।

জানা গেছে, প্রতি ইউনিট বিদ্যুতের দাম গড়ে ১ টাকা ৪৭ পয়সা বাড়ানোর আবেদন করেছে পিডিবি। এই সংস্থাটিসহ তিনটি কোম্পানিই গড়ে প্রায় ২০ শতাংশ বাড়ানোর আবেদন করেছে বলে আভাস পাওয়া গেছে।

গত সোমবার পাইকারি পর্যায়ে বিদ্যুতের দাম বাড়িয়েছে এ খাতের নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিইআরসি। প্রতি ইউনিট ৫ টাকা ১৭ পয়সা থেকে বাড়িয়ে ৬ টাকা ২০ পয়সা করা হয়েছে। অর্থাৎ পাইকারি পর্যায়ে ইউনিটে ১ টাকা ৩ পয়সা দাম বেড়েছে।সেসময় বিইআরসি জানিয়েছিল, এখনই খুচরা পর্যায়ে দাম বাড়ানোর প্রভাব পড়বে না। এরপর পিডিবি সবার আগে খুচরা দাম বাড়ানোর আবেদন জমা দিয়েছে।

তবে ঢাকা পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেডের (ডিপিডিসি) পরিচালক বিকাশ দেওয়ান বলেন, ‘পাইকারি পর্যায়ে বিদ্যুতের দাম বাড়ায় গ্রাহক পর্যায়ে প্রভাব পড়বে। লোকসান গুনতে হবে। তাই সবদিক বিবেচনা করে দাম বাড়ানোর আবেদন করা হচ্ছে।’

এ বিষয়ে বিইআরসির চেয়ারম্যান আবদুল জলিল বলেন, ‘আবেদনপত্র গ্রহণ শাখায় তিনটি আবেদন জমা হয়েছে। সব সংস্থার আবেদন জমা হওয়ার পর যাচাইবাছাই করে আইনানুযায়ী পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’বিইআরসির তথ্যমতে, আবেদনপত্রগুলোতে সব তথ্য-প্রমাণাদি ঠিক থাকলে একটি কারিগরি মূল্যায়ন কমিটি গঠন করা হবে। সেই কমিটি প্রতিবেদন দিলে গণশুনানি হবে। পুরো প্রক্রিয়া শেষে আদেশ ঘোষণা করতে কমিশনের অন্তত এক থেকে দেড় মাস সময় লাগতে পারে।

প্রসঙ্গত, গত ১৪ বছরে ৯ বার বিদ্যুতের দাম বেড়েছে। এর মধ্যে পাইকারি পর্যায়ে ১১৮ শতাংশ ও গ্রাহক পর্যায়ে ৯০ শতাংশ বেড়েছে বিদ্যুতের দাম।সবশেষ দাম বাড়ানো হয় ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারিতে, যা ওই বছরের মার্চ থেকে কার্যকর হয়। ওই সময় পাইকারি পর্যায়ে ৮ দশমিক ৩৯ শতাংশ দাম বাড়ানো হয়। একই সময় খুচরা পর্যায়ে দাম বাড়ানো হয় ৫ দশমিক ৩ শতাংশ।

আরো

© All rights reserved © 2022-2023 outlookbangla

Developer Design Host BD