রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪, ০১:০৬ পূর্বাহ্ন




যুক্তরাষ্ট্রের স্কুলেই বন্ধ হলো মোবাইলের ব্যবহার

আউটলুকবাংলা রিপোর্ট
  • প্রকাশের সময় : সোমবার, ৫ ডিসেম্বর, ২০২২ ১:৩৩ pm
International Children's day Children বিশ্ব শিশু দিবস বিশ্ব-শিশু-দিবস boy Smartphone samrt phone baby মোবাইল ফোন মোবাইলফোন স্মার্ট ফোন অ্যাডিকশন স্মার্টফোন আসক্তি শিশু কিশোর কিশোরী
file pic

পড়ুয়াদের ভবিষ্যৎ এবং তাদের শারীরিক ও মানসিক বিকাশের কথা বিবেচনা করে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের উত্তর-পশ্চিম ম্যাসাচুসেটসের একটি উচ্চ বিদ্যালয় বাক্সটন স্কুলে বন্ধ করা হলো মোবাইল ফোনের ব্যবহার। নিউ ইয়র্ক পোস্টের একটি প্রতিবেদন অনুসারে কোভিড-১৯ মহামারীর পরে যখন ক্লাস শুরু হয়, তখন স্কুলের শিক্ষকরা অনুভব করেন স্মার্টফোনের ব্যবহার বৃদ্ধির সাথে সাথে শিক্ষার্থীদের অনুভূতি হ্রাস পেয়েছে।

তারা আর একে ওপরের সাথে যোগাযোগ করে না। স্কুলের প্রধান পিটার বেক পোস্টকে বলেছেন যে “শিক্ষার্থীরা তাদের স্মার্টফোনে অনেক সময় ব্যয় করার কারণে মুখোমুখি কথা বলার অভ্যাস সম্পূর্ণভাবে ভুলে গিয়েছিল”। তিনি আরও যোগ করেছেন যে ছাত্ররা একে অপরের সাথে কথোপকথন করতে অসুবিধার সম্মুখীন হয়েছিল এবং তাদের অন্য লোকেদের সাথে থাকার বা জায়গা ভাগ করার ক্ষমতা সম্পূর্ণভাবে চলে গিয়েছিল। এসব দেখে স্কুলের শিক্ষকরা স্মার্টফোনের ওপর নিষেধাজ্ঞা কার্যকর করার সিদ্ধান্ত নেন।

প্রতিষ্ঠান-ব্যাপী ১১৪ একর ক্যাম্পাসে আইফোন এবং অ্যান্ড্রয়েড ব্যবহার করতে ছাত্র , শিক্ষক এবং স্কুলের কর্মচারী সবাইকেই নিষেধ করা হয়েছে। গত সেপ্টেম্বরে শিক্ষাবর্ষের শুরুতে নতুন নিয়ম কার্যকর হয়েছে এবং আউটলেট অনুসারে নতুন নীতি বিশাল সাফল্য পেয়েছে। পোস্টের সাথে কথা বলার সময়, স্কুলের প্রধান বলেন, “শিক্ষার্থীরা উন্নতি করছে। তারা পরিবর্তনের সাথে খুব ভালভাবে মানিয়ে নিয়েছে।

পরিবর্তনটি প্রয়োজন ছিল। কিছু ছাত্র ঘোষণা শুনে প্রথমে ভয় পেয়েছিল। তারা কল্পনাও করতে পারেনি যে এই ডিভাইসটি না থাকলে কেমন হবে তাদের জীবন।” স্কুলের নিয়ম অনুযায়ী আশেপাশে বসবাসকারী ছাত্রদের তাদের ফোন বাড়িতে রেখে যেতে হবে, আর যারা বোর্ডিংয়ে আছে তাদের সেমিস্টারের শেষ না হওয়া পর্যন্ত তাদের ডিভাইসগুলি স্কুল সমন্বয়কের অফিসে রেখে যেতে হবে। তবে শিক্ষার্থীরা পৃথিবী থেকে পুরোপুরি বিচ্ছিন্ন নয়।

প্রতিটি শিক্ষার্থীকে একটি হালকা ফোন দেওয়া হয়েছিল, যাতে ন্যূনতম বৈশিষ্ট্য রয়েছে। শুধুমাত্র ফোন করা যায় এবং মেসেজ পাঠানো যায়। শিক্ষার্থীরা স্কুলের দিন শেষে সামাজিক মিডিয়া অ্যাক্সেস করতে ডেস্কটপ কম্পিউটার ব্যবহার করতে পারবে। এই নিষেধাজ্ঞার ফলে স্কুলে একাডেমিক এবং সামাজিক জীবন উভয়ই উন্নত হয়েছে।

মি. বেক বলেছেন- “বিদ্যার্থীরা একাডেমিক কাজ করার জন্য আরও বেশি সময় ব্যয় করছে, শিল্পের মাধ্যমে সৃজনশীলভাবে নিজেদের প্রকাশ করছে, একে অপরকে জানার এবং নিজেদেরকে জানার চেষ্টা করছে।”
সূত্র: এনডিটিভি




আরো






© All rights reserved © outlookbangla

Developer Design Host BD