শুক্রবার, ১২ এপ্রিল ২০২৪, ০৯:০৮ অপরাহ্ন




‘এয়ারটেল’ ব্র্যান্ডনেম ব্যবহার করতে পারবে না রবি

আউটলুকবাংলা রিপোর্ট
  • প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ১৫ ডিসেম্বর, ২০২২ ৭:৪১ pm
Robi Axiata Limited রবি আজিয়াটা লিমিটেড
file pic

মোবাইল ফোন অপারেটর রবি আজিয়াটা লিমিটেডের দুটি ব্র্যান্ড রবি ও এয়ারটেল। এয়ারটেল ব্র্যান্ড নামেই রয়েছে মোবাইল সিম। এ নামেই ভয়েস ও ডেটার (ইন্টারনেট) প্যাকেজের প্রচার প্রসারের জন্য বিভিন্ন গণমাধ্যম, ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মে বিজ্ঞাপন দেওয়া হয়। ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগে এ বিষয়ে অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে ‘এয়ারটেল’ ব্র্যান্ডনেমের প্রচার-প্রসার আর যাতে না হয়, সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিয়েছে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা-বিটিআরসি। সংস্থাটির ২৬৯তম বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত হয়েছে বলে জানা গেছে।

বিটিআরসি সূত্রে জানা গেছে, কমিশন বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়েছে-এয়ারটেল নামে কোনও প্যাকেজ অফার করা যাবে না, যেসব প্যাকেজ চালু আছে, তার মেয়াদ শেষ হলে তা আর এয়ারটেল নামে নবায়ন করা যাবে না। এয়ারটেলের কোনও বিজ্ঞাপন প্রচার করা যাবে না এবং এয়ারটেলের হোল্ডিং বা ব্যানার বিজ্ঞাপন থাকলে তা দুই মাসের মধ্যে সরিয়ে ফেলতে হবে।

জানা গেছে, ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগে এয়ারটেলের প্যাকেজ ও অফার সম্পর্কে এ ধরনের একটি অভিযোগ আসে। টেলিযোগাযোগ বিভাগ অভিযোগটি বিটিআরসিতে পাঠিয়ে সে বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য নির্দেশনা প্রদান করে। অভিযোগটি ছিল-‘এয়ারটেল রবির অংশ। অথচ তারা আলাদা অফার দেয়। আলাদা ব্র্যান্ডিং করে। ফলে এয়ারটেল নিয়ে গ্রাহকরা বিভ্রান্ত হচ্ছে। এয়ারটেলের আলাদা প্যাকেজ ও ব্র্যান্ডিং বন্ধ করতে হবে।’

এ অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে কমিশনের লিগ্যাল ও লাইসেন্সিং বিভাগ মতামত দেয়, বিটিআরসি থেকে ২০১৬ সালের ১০ অক্টোবর রবি আজিয়াটা লিমিটেড ও এয়ারটেল বাংলাদেশ লিমিটেডের কোম্পানি একীভূতকরণ বিষয়ে কতিপয় শর্ত সাপেক্ষে অনুমোদন প্রদান করা হয়। সে সময় গ্রাহক ভোগান্তির কথা বিবেচনা করে টেলিযোগাযোগ খাতের উন্নয়ন এবং সুশৃঙ্খল ও সুদক্ষভাবে পরিচালনার স্বার্থে পণ্য বা সেবার বিজ্ঞাপন ও বাজারজাতকরণের বিষয়ে শর্ত আরোপ করা হয়।

২০ নম্বর শর্তে বলা হয়-কোম্পানি একীভূতকরণের পর একীভূত কোম্পানি ‘রবি আজিয়াটা লিমিটেড’ নামেই সব পণ্য বা সেবার বিজ্ঞাপন ও বাজারজাতকরণ করতে হবে। এর ব্যত্যয় হলে তা একীভূতকরণ শর্তের লঙ্ঘন। কাজেই রবি এই শর্ত লঙ্ঘন করলে টেলিযোগাযোগ আইন অনুযায়ী, বিটিআরসি বাধ্যতামূলক বাস্তবায়ন আদেশ জারি বা নিষেধাজ্ঞা আরোপসহ বিধিমোতাবেক ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারে।

রবি আজিয়াটা লিমিটেডের এয়ারটেল ব্র্যান্ড ব্যবহার করার বিষয়ে প্রতিষ্ঠানটির প্রতিনিধিদের সঙ্গে গত ২০ ও ২২ নভেম্বর বিটিআরসি কর্মকর্তাদের দুটি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। ওই বৈঠকে বিটিআরসির ভাইস চেয়ারম্যানের সভাপতিত্বে রবির প্রধান নির্বাহী উপস্থিত ছিলেন। বৈঠকে রবির পক্ষ থেকে একটি প্রেজেন্টেশন দেওয়া হয়।

তাতে রবি জানায়- মার্জারের ২০ নম্বর শর্ত অনুযায়ীই বাজার, বিপণন, সরবরাহসহ সব বাজার যোগাযোগ ব্যবস্থা রবি আজিয়াটা লিমিটেড নামেই করছে। রবি আজিয়াটা লিমিটেডের এয়ারটেল বাংলাদেশ লিমিটেড অধিগ্রহণ ছিল না। বরং এটা ছিল একীভূতকরণ-যা সরকার ও উচ্চ আদালত অনুমোদিত। পরবর্তী সময়ে একীভূত কোম্পানি রবি আজিয়াটা লিমিটেডে এয়ারটেলের অংশীদার ২৮ শতাংশ। মার্জারের শর্ত অনুযায়ী এয়ারটেল বাংলাদেশ লিমিটেডের বিদ্যমান পরিষেবা, অফার, ট্যারিফের স্বাভাবিক কার্যক্রম রবি আজিয়াটা লিমিটেড এয়ারটেল ব্র্যান্ডের মাধ্যমে দিয়ে যাচ্ছে।

রবি এটাও উল্লেখ করেছে, রবি আজিয়াটা লিমিটেড একটি কোম্পানি-যেখানে রবিও একটি ব্র্যান্ড। ওই প্রেজেন্টেশনে রবি আজিয়াটা লিমিটেড আরও জানায়, রবির মোট আয়ের ৩০ শতাংশ আসে এয়ারটেল ব্র্যান্ডের মাধ্যমে। রবি আজিয়াটা লিমিটেডের নেটওয়ার্কে সর্বমোট ডেটা ব্যবহারের ৩৮ শতাংশ ব্যবহার হয় এয়ারটেল ব্র্যান্ডের মাধ্যমে।

সূত্র জানায়, রবির বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে গত ২২ নভেম্বর অনুষ্ঠিত বৈঠকে উপস্থিত বিটিআরসির কর্মকর্তারা একমত পোষণ করেন, রবি আজিয়াটা লিমিটেড ও এয়ারটেল বাংলাদেশ লিমিটেডের কোম্পানি একীভূতকরণের বিষয়ে কমিশন আরোপিত শর্তানুযায়ী-একীভূতকরণের পর রবি আজিয়াটা লিমিটেডের নামেই সব পণ্য সেবার বিজ্ঞাপন ও বাজারজাতকরণ করতে হবে এবং এয়ারটেল ব্র্যান্ডনেমটি ব্যবহার করা যাবে না।

এ বিষয়ে জানতে রবি আজিয়াটা লিমিটেডের চিফ করপোরেট অ্যান্ড রেগুলেটির অফিসার সাহেদ আলমের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, এ ‘ধরনের কোনও সিদ্ধান্তের বিষয়ে আমাদের (রবি) জানা নেই।’

২০১৬ সালে সংঘটিত রবি ও এয়ারটেলের মাঝে মার্জারের শর্তানুসারে এয়ারটেলের নামে কোনও প্যাকেজ অফার করা যাবে না। বর্তমানে এয়ারটেলের নামে চলমান যে প্যাকেজগুলো বাজারে আছে, সেগুলো মেয়াদ শেষে এয়ারটেলের নামে আর নবায়ন করা যাবে না। যেসব গ্রাহক প্যাকেজগুলো নবায়ন করতে চায়, তাদের বিকল্প প্যাকেজ অফার করা যাবে।

প্যাকেজ সংক্রান্ত বিদ্যমান নির্দেশিকা অনুযায়ী-যেকোনও (আনলিমিটেড প্যাকেজ ব্যতীত) প্যাকেজের সর্বোচ্চ মেয়াদ ৩০ দিন। সেই অনুসারে অনলাইনে (অফিসিয়াল, ওয়েবসাইট, ফেসবুক পেজ, টেলিভিশন প্রভৃতি) এয়ারটেলের কোনও বিজ্ঞাপন প্রচার করা যাবে না। রাস্তাঘাটে হোল্ডিং, রিটেইলার শপ ইত্যাদিতে এয়ারটেলের যেকোনও বিজ্ঞাপন থাকলে তা চিঠি জারির (নির্দেশনা) তারিখ থেকে দুই মাসের মধ্যে সরিয়ে ফেলতে হবে। [বাংলা ট্রিবিউন]




আরো






© All rights reserved © outlookbangla

Developer Design Host BD