বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ০১:১৭ অপরাহ্ন




আন্তর্জাতিক অভিবাসী দিবস আজ, ভালো অবস্থানে বাংলাদেশ

আউটলুকবাংলা রিপোর্ট
  • প্রকাশের সময় : রবিবার, ১৮ ডিসেম্বর, ২০২২ ৯:৪৮ am
labour জনশক্তি প্রবাসী MANPOWER EXPORTS migrant workers wage worker মাইেগ্রন অভিবাসী শ্রমিক মাইেগ্রন অভিবাসী শ্রমিক রেমিট্যান্স রেমিটেন্স মজুর ডলার রির্জাভ migrant workers worker মাইেগ্রন অভিবাসী শ্রমিক
file pic

আজ রবিবার আন্তর্জাতিক অভিবাসী দিবস। বিশ্বব্যাপী অভিবাসী ও তাদের পরিবারের মর্যাদা ও অধিকার নিশ্চিত করার লক্ষ্যে প্রতিবছরের ১৮ ডিসেম্বর ‘আন্তর্জাতিক অভিবাসী দিবস’ হিসেবে পালিত হয়ে আসছে।

এবারও প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় ‘আন্তর্জাতিক অভিবাসী দিবস’ যথাযথ গুরুত্বের সাথে উদযাপনের উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। অভিবাসন সংশ্লিষ্ট সকল অংশীজনকে সঙ্গে নিয়ে নানা আয়োজনের মাধ্যমে দিবসটি উদযাপন করা হচ্ছে।

এ বছরের আন্তর্জাতিক অভিবাসী দিবসের মূল ও জাতীয় অনুষ্ঠান রবিবার সকাল সাড়ে ১০টায় রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হবে। অন্যান্য বছরের মতো এবারও এই অনুষ্ঠানে সিআইপি (এনআরবি) সম্মাননা এবং প্রবাসীদের মেধাবী সন্তানদের বৃত্তি প্রদান করা হবে। মূল অনুষ্ঠানের পাশাপাশি জেলা ও উপজেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় সারাদেশে উদযাপিত হবে দিবসটি। উদযাপনের অন্যান্য অংশে আছে জাতীয় দৈনিকে ক্রোড়পত্র প্রকাশ, বর্ণাঢ্য স্যুভেনির প্রকাশ, প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিকসসহ বিভিন্ন মিডিয়ায় প্রচারণা।

দিবসটি উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এক বাণীতে বলেন, অভিবাসনে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহি নিশ্চিত করার জন্যে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় আইন ও নীতি কাঠামো প্রণয়ন ও সংস্কার করার কাজ করছে।

তিনি বলেন, ‘বিশ্বের অন্যান্য দেশের ন্যায় বাংলাদেশেও ‘আন্তর্জাতিক অভিবাসী দিবস’ পালন করা হচ্ছে জেনে আমি আনন্দিত। দিবসটি উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী অভিবাসী কর্মী তাদের পরিবারের সদস্যসহ অভিবাসন প্রক্রিয়া ও অভিবাসী কল্যাণের সাথে সম্পৃক্ত সকল ব্যক্তি, প্রতিষ্ঠান ও সংগঠনকে আন্তরিক শুভেচ্ছা জানান।

প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. আহমেদ মুনিরুছ সালেহীন শনিবার এক সংবাদ সম্মেলনে জানান, মহান বিজয় দিবসের এই মাহেন্দ্রক্ষণে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের ক্ষুধা-দারিদ্রমুক্ত, আত্মপ্রত্যয়ী ও আত্মমর্যাদাশীল ‘সোনার বাংলাদেশ’ বিনির্মাণে বৈদেশিক কর্মসংস্থানে আমাদের অঙ্গীকারকে সামনে রেখে ‘আন্তর্জাতিক অভিবাসী দিবস ২০২২’র প্রতিপাদ্য নির্ধারণ করা হয়েছে- ‘থাকব ভালো, রাখব ভালো দেশ, বৈধ পথে প্রবাসী আয়-গড়ব বাংলাদেশ’। তিনি বলেন, আমরা বিশ্বাস করি, প্রবাসীদের কল্যাণ সাধন এবং দেশের রেমিটেন্স বৃদ্ধিতে আমাদের প্রচেষ্টা ও প্রত্যাশা পূরণ করতে এই প্রতিপাদ্য অর্থবহ ভূমিকা পালন করবে।

মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি জানান, দেশে প্রতিবছর আনুমানিক ২০ থেকে ২৫ লাখ কর্মী শ্রমবাজারে নতুন করে যুক্ত হচ্ছে। মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে প্রতিবছর প্রায় ৭ থেকে ৮ লাখ লোক বৈদেশিক কর্মসংস্থানের উদ্দেশ্যে বিভিন্ন দেশে গমন করে। বিএমইটি’র পরিসংখ্যান অনুযায়ী ২০২১ সালে ৬ লাখ ১৭ হাজার ২০৯ জন নারী-পুরুষ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বৈদেশিক কর্মসংস্থানের উদ্দেশ্যে গেছেন। একই সাথে প্রবাসীদের পাঠানো ২২ লাখ ৭ হাজার ৮৭ মিলিয়ন মার্কিন ডলার আমাদের অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে।

করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত বিদেশ প্রত্যাগত প্রবাসী কর্মীদের এবং প্রবাসে করোনায় মৃত কর্মীর পরিবারের সদস্যদের প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংকের মাধ্যমে সহজ শর্তে দুইশ’ কোটি টাকার ‘বিনিয়োগ ঋণ’ প্রদান করা হয়েছে। ওয়েজ আর্নার্স কল্যাণ বোর্ডের তহবিল থেকে প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংকের মাধ্যমে মাত্র ৪ শতাংশ সরল সুদে ও সহজ শর্তে এ ঋণ প্রদান কার্যক্রম চলমান। এর আওতায় গত ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত ৬ হাজার ৮০৩ জন ঋণগ্রহীতাকে ১৮০ কোটি ৯৩ লাখ টাকা ঋণ প্রদান করা হয়েছে।

সচিব জানান, সম্প্রতি মালয়েশিয়া শ্রমবাজার চালু হয়েছে। স্বল্প সময়ের মধ্যেই ১ লাখ ১৫ হাজার ৫৪১ জনের নিয়োগ অনুমতি প্রদান সম্পন্ন হয়েছে। এছাড়াও কর্মী প্রেরণ বিষয়ে গ্রিসের সাথে বাংলাদেশের একটি আগ্রহপত্র স্বাক্ষরিত হয়েছে। আলবেনিয়া, মাল্টা ও বসনিয়ার সাথেও কর্মী প্রেরণ বিষয়ে চুক্তি স্বাক্ষরের অপেক্ষায় রয়েছে। এছাড়াও, বর্তমানে নতুন শ্রমবাজার হিসেবে কম্বোডিয়া, উজবেকিস্তান, পোল্যান্ড, হাঙ্গেরি, রোমানিয়াসহ আফ্রিকা মহাদেশের কয়েকটি দেশ এবং জাপান, চীন, ক্রোয়েশিয়া, সেনেগাল, বুরুন্ডি, সিশেলস এ কর্মী পাঠানো শুরু হয়েছে।

তিনি জানান, ২০২২-২৩ অর্থবছরের নভেম্বর মাস পর্যন্ত ৫ মাসে ৪ লাখ ১২ হাজার ২৭০ জনের বিদেশে কর্মসংস্থান হয়েছে। কর্মী যাওয়ার এই ধারা অব্যাহত থাকলে এ অর্থ বছরে ৯ থেকে ১০ লাখ লোকের বিদেশে কর্মসংস্থান হবে।

বাংলাদেশ ভালো করবে

করোনার অভিঘাত পেরিয়ে পরিস্থিতি যখন একটু স্বাভাবিক হতে শুরু করে, তখনই এক নতুন সংকট দেখা দিয়েছে। করোনার সময় বিভিন্ন দেশের সঙ্গে যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যাওয়ায় টালমাটাল পরিস্থিতিতে পড়েছিল অভিবাসন খাত। এই সমস্যা কাটিয়ে উঠতে না উঠতেই রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের প্রভাব পড়েছে সারা বিশ্বে। যুদ্ধ দীর্ঘায়িত হলে বড় ধরনের জটিলতার আশঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা। তবে আপাতত যুদ্ধের কারণে এ খাতে খুব একটা বিপদ দেখছেন না বাংলাদেশে অভিবাসন খাতের সংশ্লিষ্টরা।

গত বছরের শেষে মালয়েশিয়ার সঙ্গে শ্রম চুক্তির পর এই বছরের আগস্টে প্রথম কর্মী যায় সেদেশে। এর মধ্যে দিয়ে দীর্ঘদিন বন্ধ থাকা মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার চালু পুনরায় চালু হয়। বাজার চালু হওয়ার পর এখন পর্যন্ত এক লাখ ১৫ হাজার ৫৪১ জনের নিয়োগানুমতি দিয়েছে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়। এছাড়া নতুন বাজার হিসেবে কর্মী পাঠানোর বিষয়ে গ্রিসের সঙ্গে বাংলাদেশের একটি আগ্রহপত্র স্বাক্ষরিত হয়েছে।

প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় জানায়, আলবেনিয়া, মাল্টা ও বসনিয়ার সঙ্গে কর্মী পাঠানোর বিষয়ে চুক্তি স্বাক্ষরের অপেক্ষায় রয়েছে। এছাড়াও মধ্যপ্রাচ্যের বাইরে বর্তমানে নতুন শ্রমবাজার হিসেবে কম্বোডিয়া, উজবেকিস্তান, পোল্যান্ড, হাঙ্গেরি, রোমানিয়াসহ আফ্রিকা মহাদেশের কয়েকটি দেশ এবং জাপান, চীন, ক্রোয়েশিয়া, সেনেগাল, বুরুন্ডি, সেশেলসে কর্মী পাঠানো শুরু হয়েছে।

কোভিড মহামারির সময় বিভিন্ন দেশে অভিবাসীরা কর্মসংস্থান নিয়ে বেশি বিপাকে পড়েন। বিশেষ করে মৌসুমি আর অভিবাসী শ্রমিকরা দ্রুত চাকরি হারান। বিভিন্ন দেশে স্থানীয় মানুষও চাকরি হারাতে থাকেন। তবে পরিসংখ্যান বলছে, এক্ষেত্রে অভিবাসী শ্রমিকরা বেশি ভুক্তভোগী হয়েছেন। হাঙেরি, স্পেন এবং ইটালিতে স্থানীয়দের তুলনায় অভিবাসীরা ৫০ শতাংশ বেশি চাকরি হারানোর ঝুঁকিতে ছিলেন।

অনিশ্চিত এবং কম মজুরির খাতগুলোতে অভিবাসীরা নিয়োজিত থাকায় তাদের ক্ষেত্রে এই প্রবণতা বেশি ছিল বলে জানিয়েছে আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা আইএলও। করোনায় বেশি ক্ষতিগ্রস্ত এমন খাতের মধ্যে রয়েছে খাদ্য সরবরাহ, পর্যটন, বিনোদন, খুচরা বিক্রি এবং নির্মাণ শিল্প।

এক্ষেত্রে অভিবাসী শ্রমিকদের অনেকে চাকরি হারিয়ে নিজ দেশে ফেরত যান, যারা পরিসংখ্যানের আওতায় আসেননি। মহামারির সময় শুধু ভারতেরই ৬১ লাখ শ্রমিক চাকরি হারিয়ে দেশে ফেরত আসার পরিস্থিতিতে পড়েন। থাইল্যান্ড, নেপাল, মালয়েশিয়া, শ্রীলঙ্কার লাখো অভিবাসীও এই পরিস্থিতির মধ্যে পড়েন। এক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি বিপাকে পড়েন আরব উপসাগরীয় দেশগুলোতে কর্মরত শ্রমিকেরা। এই সময় কয়েক লাখ প্রবাসী কর্মী চাকরি হারিয়ে দেশে ফেরত আসেন। যার মধ্যে প্রায় অর্ধেকই কাজ হারিয়ে দেশে ফিরে এসেছেন বলে বিভিন্ন গবেষণায় জানা যায়।

অভিবাসন বিশেষজ্ঞদের মতে, যেকোনও বৈশ্বিক সংকটে নতুন অভিবাসী তৈরি হয়। এর মধ্যে আবার একটা দিক থাকে সেটি হচ্ছে ‘শোষণ’ । দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর যখন মহামারি শুরু হয় তখন ইউরোপের অনেক দেশেই কর্মী সংকট দেখা দেয়। তাদের অনেক মানুষের মৃত্যুর পর অভিবাসীদের স্বাগত জানানো শুরু হয়। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর প্রচুর অভিবাসী প্রবেশের সুযোগ দিয়ে পশ্চিমা দেশগুলো তাদের অর্থনীতি পুনুরুদ্ধার করে। যুদ্ধ বন্ধ হওয়ার পর দুর্ভীক্ষ, মহামারি তৈরি হয়। সেসময় অর্থনীতি পুনরুদ্ধারের ক্ষেত্রে অভিবাসীরা একটি ভূমিকা পালন করে। তখন তাদের একটি ডিমান্ড তৈরি হয়। কৃষি কাজ, সেবাখাত, স্বাস্থ্যখাতে অভিবাসীদের একটা ভূমিকা থাকে।

নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সেন্টার ফর মাইগ্রেশন স্টাডিজের সমন্বয়ক ও সহকারী অধ্যাপক ড. জালাল উদ্দিন সিকদার বলেন, যুদ্ধচলাকালীন সময় কিংবা মহামারির সময় এমন হয় না সাধারণত। অভিবাসী কর্মীর ডিমান্ড বেড়ে যায় এরপর। যেকোনও দুর্ভীক্ষ, যুদ্ধাবস্থা, মহামারির পর কর্মীর একটা সংকট তৈরি হয়। এরকম প্রথম বিশ্বযুদ্ধ, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় এটা দেখা গেছে। স্প্যানিশ ফ্লু’র অভিঘাতের পর ইউরোপীয় ইউনিয়ন কলোনিয়াল দেশগুলো থেকে প্রচুর কর্মী নিয়েছিল অর্থনীতি পুনরুদ্ধারে। এখনও যুক্তরাজ্যের মতো দেশগুলো অর্থনীতি পুনরুদ্ধার করছে অভিবাসী দ্বারা। কিন্তু এবারের সমস্যা হচ্ছে একের পর এক ক্রাইসিস থেকে যাচ্ছে। প্রথম বিশ্বযুদ্ধের পর হয়েছিল স্প্যানিশ ফ্লু , তারপর কিন্তু পুনরুদ্ধার হয়েছে। ২০২৩ এর পর মহামারি থাকবে না। কিন্তু যুদ্ধ যদি চলতে থাকে তাহলে কিন্তু আমাদের জন্য অনেক বড় সমস্যা। দুর্ভীক্ষ আর যুদ্ধ যদি একসঙ্গে চলে তাহলে এই লোকগুলো যাবে কোথায়।

প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় জানায়, বিশ্বব্যাপী কোভিড মহামারি ও রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের ফলে অর্থনৈতিক মন্দার কারণে অন্যান্য খাতের মতো বৈদেশিক কর্মসংস্থান খাতেও প্রভাব পড়েছে। বিশ্বব্যাপী পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসার পর ২০২২-২৩ অর্থবছরের নভেম্বর মাস পর্যন্ত পাঁচ মাসে চার লাখ ১২ হাজার ২৭০ জনের বৈদেশিক কর্মসংস্থান হয়েছে। মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. আহমেদ মুনিরুছ সালেহীন আশা করছেন, কর্মী যাওয়ার এই ধারা অব্যাহত থাকলে এই অর্থ বছরে ৯ থেকে ১০ লাখ লোকের বিদেশে কর্মসংস্থান হবে।

তিনি বলেন, আমার কাছে মনে হয় যুদ্ধের বড় যে প্রভাব সেটা আমরা অতিক্রান্ত করে এসেছি। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে এক ধরনের অর্থনৈতিক মন্দা চলছে, মূল্যস্ফীতি অনেক বেড়েছে। বিভিন্ন সংস্থা কর্মী ছাঁটাই করছে। এজন্য কিছু কিছু ক্ষেত্রে বেতনভাতা কমেছে। কিন্তু বড় ধরনের ক্রাইসিস অভিবাসন খাতে সৃষ্টি হয়েছে এই ধরনের ঘটনা আমরা এখনও শুনিনি।

জনশক্তি কর্মসংস্খান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরো (বিএমইটি) এর মহাপরিচালক মো. শহীদুল আলম বলেন, মধ্যপ্রাচ্যে তেলের দাম বেশি, সেখানেই কর্মী যায় ৮০ ভাগ। যাদের অর্থনীতি ভালো আমাদের কর্মী সেখানেই যায়। যুদ্ধের কারণে কর্মী যাওয়ার হার আরও বেড়েছে।




আরো






© All rights reserved © outlookbangla

Developer Design Host BD