শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১২:৩৬ পূর্বাহ্ন




পানিতে আর্সেনিক শিশুদের অ্যান্টিবায়োটিক প্রতিরোধী করে তোলে: গবেষণা

আউটলুকবাংলা রিপোর্ট
  • প্রকাশের সময় : শুক্রবার, ২৩ ডিসেম্বর, ২০২২ ১:০৮ am
Drink hydrosphere food energy পানি জল বারি সলিল নীর বারিমণ্ডল shallow tube well শ্যালো টিউবওয়েল গভীর নলকূপ চাপকল তারাপাম্প ভূগর্ভস্থ পানি অগভীর নলকূপ
file pic

বাংলাদেশে যেসব গ্রামের পানিতে আর্সেনিকের মাত্রা বেশি আছে, এমন এলাকায় শিশুদের মল ও পানিতে অ্যান্টিবায়োটিক প্রতিরোধী ই. কোলাই (একটি ব্যাকটেরিয়া যা সাধারণত উষ্ণ রক্তের প্রাণিদের অন্ত্রের নিচের অংশে পাওয়া যায় এবং এটি ডায়রিয়ার অন্যতম কারণ) এর উচ্চ প্রাদুর্ভাব লক্ষ্য করা গেছে। এছাড়াও কম আর্সেনিক দূষণযুক্ত অঞ্চলের তুলনায় খাবার পানিতে আর্সেনিক দূষণের মাত্রা বেশি এমন এলাকায় অ্যান্টিবায়োটিক প্রতিরোধী শারীরিক অবস্থা বেশি দেখা গেছে। আইসিডিডিআর,বি’র বিজ্ঞানী এবং সহযোগীদের একটি নতুন গবেষণায় এসব তথ্য পাওয়া গেছে। গবেষণাটি প্লস প্যাথোজেন্সে প্রকাশিত হয়েছে।

গবেষকরা জানান, অ্যান্টিবায়োটিক প্রতিরোধ বিশ্বব্যাপী মানুষের হাসপাতালে ভর্তি ও মৃত্যুর অন্যতম প্রধান কারণ। যদিও অ্যান্টিবায়োটিক প্রতিরোধের প্রধান কারণ অ্যান্টিবায়োটিকের অত্যাধিক ব্যবহার এবং অপব্যবহার। কিন্তু প্রাকৃতিক উপাদান যেমন ভারী ধাতুগুলোও অ্যান্টিবায়োটিক প্রতিরোধের কারণ হতে পারে।

গবেষকরা চাঁদপুর জেলার হাজীগঞ্জ ও মতলব উপজেলার ১০০টি পরিবারের (প্রত্যেক উপজেলায় ৫০টি) মা ও শিশুদের মল এবং খাবার পানির নমুনা সংগ্রহ করেন। হাজীগঞ্জে বসবাসকারী পরিবারের মানুষেরা অগভীর নলকূপের পানীয় পান করেন। এখানকার পানিতে আর্সেনিকের উচ্চ মাত্রা পাওয়া গেছে। অন্যদিকে, মতলবের পরিবারের সদস্যরা আর্সেনিকমুক্ত গভীর নলকূপ থেকে তাদের খাবার পানি সংগ্রহ করেন।

হাজীগঞ্জের ৫০টি পানির নমুনায় মেডিয়ান আর্সেনিকের ঘনত্ব ছিল খাবার পানিতে আর্সেনিকের সর্বোচ্চ সীমার চেয়ে বেশি। অন্যদিকে, মতলবের ৫০টি নমুনায় মেডিয়ান আর্সেনিকের ঘনত্ব প্রায় শূন্য। সামগ্রিকভাবে দুটি এলাকার ৮৪ শতাংশ পানি এবং মলের নমুনায় ই. কোলাই উপস্থিতি পাওয়া গেছে। মতলবের পানির তুলনায় হাজীগঞ্জের পানিতে অ্যান্টিবায়োটিক-প্রতিরোধী ই. কোলাইয়ের প্রাদুর্ভাব উল্লেখযোগ্যভাবে বেশি দেখা যায় এবং হাজীগঞ্জের ৯৪ শতাংশ শিশুদের দেহে ব্যাকটেরিয়াটির উপস্থিতি পাওয়া যায়, যা মতলবের শিশুদের ক্ষেত্রে ৭৬ শতাংশ। তবে কোনও এলাকার মায়েদের মধ্যে ই. কোলাইয়ের উপস্থিতি পাওয়া যায়নি। এছাড়াও হাজীগঞ্জের ই. কোলাই-এর উচ্চতর অনুপাত পেনিসিলিন, সেফালোস্পোরিন এবং ক্লোরামফেনিকলসহ একাধিক অ্যান্টিবায়োটিকের বিরুদ্ধে প্রতিরোধী ছিল।

গবেষকরা আশঙ্কা করেছেন যে, বাংলাদেশে আর্সেনিকের প্রাদুর্ভাবযুক্ত এলাকার শিশুদের দেহে আর্সেনিকের উপস্থিতি এবং অ্যান্টিবায়োটিক প্রতিরোধের মধ্যকার সম্পর্ক জনস্বাস্থ্যের জন্য একটি উদ্বেগের বিষয়। ফলে আর্সেনিকের প্রভাব ও বিস্তার কমানোর প্রচেষ্টা আরও জোরদার করা প্রয়োজন।

গবেষণা দলের প্রধান গবেষক আইসিডিডিআর,বি’র অ্যাডজাঙ্কট সায়েন্টিস্ট ও যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটন স্টেট ইউনিভার্সিটির সহকারী অধ্যাপক মোহাম্মদ আমিনুল ইসলাম বলেন, আর্সেনিকের মতো ভারী ধাতু পরিবেশে অ্যান্টিবায়োটিকের চেয়ে বেশি স্থিতিশীল। এসব ধাতু দীর্ঘ সময় ধরে ব্যাকটেরিয়ার ওপর প্রভাব বিস্তার করে চলেছে। যার ফলাফল হিসেবে মানুষের মধ্যে অ্যান্টিমাইক্রোবায়াল রেজিস্ট্যান্স গড়ে উঠছে।

তিনি আরও বলেন, এর ফলে কখনও অ্যান্টিবায়োটিক নেয়নি তবে আর্সেনিকের মতো ধাতুর সংস্পর্শে এসেছে এমন মানুষ এবং বিভিন্ন প্রাণির দেহে অ্যান্টিবায়োটিক-প্রতিরোধী বিভিন্ন অণুজীব তাদের বসতি গড়ে তুলতে পারে। অন্যান্য কনফাউন্ডারের তুলনায় গবেষণা থেকে আমরা অ্যান্টিবায়োটিক রেজিস্ট্যান্সের যে ফলাফল পেয়েছি সেটি নিয়ে আরও গবেষণা করলে অনেক বেশি উপকার পাওয়া সম্ভব। তবে পরিবেশে যাতে ভারী ধাতুর প্রভাবে অ্যান্টিবায়োটিক রেজিস্ট্যান্স না হয় সে বিষয়ে খেয়াল রাখার পাশাপাশি ওষুধ ও কৃষিতে অ্যান্টিমাইক্রোবায়াল ব্যবহারে দায়িত্বশীল হতে হবে।

আইসিডিডিআর,বি’র অ্যাসোসিয়েট সায়েন্টিস্ট মোহাম্মদ বদরুল আমিন বলেন, আমাদের বর্তমান গবেষণার ফলাফলগুলো বিবেচনা করে দেশের বিভিন্ন পরিবেশে সিসা, পারদ ও লোহার মতো অন্যান্য ভারী ধাতুর প্রভাব সম্পর্কে আরও অনুসন্ধান করার এখনই সঠিক সময়।




আরো






© All rights reserved © outlookbangla

Developer Design Host BD