রবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪, ০৭:৩২ পূর্বাহ্ন




চিনিতে অস্বস্তি কাটেনি

আউটলুকবাংলা রিপোর্ট
  • প্রকাশের সময় : শুক্রবার, ৬ জানুয়ারী, ২০২৩ ১০:৫২ am
sugar sweet tasting soluble carbohydrates food monosaccharides glucose fructose galactose চিনি বস্তা সুক্রোজ গ্লুকোজ
file pic

ডিসেম্বরের শুরু থেকেই বাজারে আসা শুরু হয় আমন ধানের নতুন চাল। এতে ডিসেম্বরের মাঝামাঝি থেকে কিছুটা কমতে থাকে চালের দাম। নতুন বছরে জানুয়ারিতেও দাম কমার এ ধারা অব্যাহত রয়েছে। তবে সেটা স্বস্তির পর্যায়ে পৌঁছেনি। বাজারে চালের সরবরাহ বাড়ার পরও কেজিতে দাম কমছে মাত্র দু-তিন টাকা। গত কয়েক মাসের ব্যবধানে চালের বাজার এখনো অনেক চড়া।

তবে সে তুলনায় পৌষের শুরু থেকে স্বস্তি ফিরেছে সবজির বাজারে। শীতের সবজির ভরপুর সরবরাহ থাকায় দামও অনেক কম। নতুন করে বেড়েছে কাঁচা মরিচের দাম। অন্যদিকে এখনো কাটেনি চিনির সংকট।

শুক্রবার (৬ জানুয়ারি) সকালে সরেজমিনে রাজধানীর কয়েকটি কাঁচাবাজার ঘুরে এমন চিত্রই দেখা গেছে।

বিক্রেতারা বলছেন, প্রায় দুই মাস ধরে বাজারে চিনির সংকট। পাইকারি বাজারে পাওয়া গেলেও কিনতে হচ্ছে সরকার নির্ধারিত দামের চেয়ে বেশি দামে।

বাজার ঘুরে দেখা গেছে, খোলা চিনির কেজি ১০২ এবং মোড়কজাত চিনির কেজি ১০৭ টাকা নির্ধারণ করেছে সরকার। এরপরও বেশিরভাগ জায়গায় চিনি পাওয়া যাচ্ছে না। কোথাও পাওয়া গেলেও ভোক্তাদের কিনতে হচ্ছে ১১০ থেকে ১১৫ টাকা দরে। একই দরে বিত্রিক্র হচ্ছে খোলা চিনিও। তবে এর চেয়ে অনেক বেশি দরে বিক্রি হচ্ছে আখের লাল চিনি। মোড়কজাত এ ধরনের চিনি বিক্রি হচ্ছে ১৩০ থেকে ১৪০ টাকা কেজি দরে।

অন্যদিকে গত সপ্তাহের ব্যবধানে মরিচের দাম বেড়েছে কেজিতে ৩০-৪০ টাকা। বাজারে এখন এক কেজি মরিচ বিক্রি হচ্ছে ১১০ থেকে ১২০ টাকা দরে। যা সপ্তাহখানেক আগে ৮০ টাকা ছিল।

রাজধানীর কারওয়ান বাজারে মরিচ বিক্রেতা বাছেদ মোল্লা বলেন, পাইকারিতে ১০ থেক ১৫ দিন ধরে কাঁচা মরিচের দাম বাড়ছে। সরবরাহ কম সেজন্য দাম উঠছে। এ কারণে খুচরা পর্যায়েও দাম বাড়তি।

তবে আমন ধান উঠায় মোটা চালের দাম আরও কেজিতে দুই-তিন টাকা করে কমেছে। গত দুই সপ্তাহ ধরেই চালের দাম নিম্নমুখী। এখন বাজারে গুটি স্বর্ণা জাতের চালের কেজি ৪৮ থেকে ৫২ টাকা। মাঝারি আকারের চালের দামও কমেছে এক থেকে দুই টাকা করে। পায়জাম ও বিআর-২৮ জাতের চাল মাঝারি আকারের চালের কেজি কেনা যাবে ৫৮ থেকে ৬০ টাকা দরে। তবে চিকন বা মিনিকেট চালের দাম কমেনি। এ মানের চাল এখনও ৭২ থেকে ৭৫ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

মালিবাগ বাজারে চাল ব্যবসায়ী আব্দুল খালেক বলেন, আমাদের বেশিরভাগ মিনিকেট চালের ক্রেতা এখন বিআর-২৮ জাতের চাল কিনছেন। খরচ কমানোর জন্যই চালের কেনার ক্ষেত্রে পরিবর্তন এনেছেন ক্রেতারা।

এদিকে শীত মৌসুমের বেশিরভাগ সবিজির দাম কমেছে। দু-তিনটি ছাড়া বেশিরভাগ সবজির দাম ৩০ থেকে ৪০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। বিশেষ করে সিম, শালগম, ফুলকপি, বাঁধাকপি, পেপে, মুলা ও নতুন আলু কেনা যাচ্ছে এ দামে। অন্যদিকে সরবরাহ বাড়ায় পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৪০ টাকা দরে।

এছাড়া আগের মতোই ডিম প্রতি ডজন ১১৫ থেকে ১২০ টাকা এবং ব্রয়লার মুরগির কেজি ১৫০ থেকে ১৫৫ টাকায় কেনা যাচ্ছে। প্রতি কেজি ৭০০ টাকায় অপরিবর্তিত রয়েছে গরুর মাংসের দামও। মাছের বাজারেও দরদাম রয়েছে প্রায় অপরিবর্তিত।




আরো






© All rights reserved © outlookbangla

Developer Design Host BD