শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪, ১২:৩৪ পূর্বাহ্ন




অ্যান্ড্রয়েড ফোনে বিজয় কি-বোর্ড ব্যবহারের নির্দেশনায় নাগরিক ঐক্যের প্রতিবাদ

আউটলুকবাংলা রিপোর্ট
  • প্রকাশের সময় : বুধবার, ১৮ জানুয়ারী, ২০২৩ ৮:১৮ pm
Mobile Phone smartphone android feature phone মোবাইল ফোন সেলুলার ফোন হ্যান্ডসেট মোবাইলফোন সেলফোন হ্যান্ড ফোন মুঠোফোন ফিচার্স স্মার্টফোন অ্যান্ড্রয়েড কল রিসিভ phone silent ringing ring tone ring sound made telephone incoming call bells alerting bell তিলাওয়াত জিকির মোবাইল কোরআন তেলাওয়াত আজান দোয়া বাজানো মোবাইল রিংটোন
file pic

আমদানিকৃত এবং স্থানীয়ভাবে উৎপাদিত সকল অ্যান্ড্রয়েড মোবাইল ফোনে বিজয় কি-বোর্ড ব্যবহারের নির্দেশনায় প্রতিবাদ জানিয়েছেন নাগরিক ঐক্যের সভাপতি মাহমুদুর রহমান মান্না। তিনি বলেছেন, জনগণের তথ্য হাতিয়ে নেয়ার উদ্দেশ্যেই বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনকে (বিটিআরসি) দিয়ে এই নির্দেশনা দিয়েছে স্বৈরাচার সরকার। আজ বুধবার দলের সাংগঠনিক সম্পাদক সাকিব আনোয়ার স্বাক্ষরিত বিবৃতিতে তিনি এসব কথা বলেন।

গণতন্ত্র মঞ্চের সমন্বয়ক মান্না বলেন, ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রীর নিজের মালিকানার বিজয় কি-বোর্ড তার মন্ত্রণালয়ের অধীনে থাকা প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে চাপিয়ে দেয়া অনৈতিক এবং বেআইনিও। তিনি সরকারের কাছে কত টাকায় এটা বিক্রয় করেছেন তা প্রকাশ করেননি। এভাবে স্মার্টফোনের কোনো অ্যাপ প্রি-ইনস্টল থাকা ব্যবহারকারীর জন্য চরম নিরাপত্তা হুমকি।

শঙ্কা প্রকাশ করে ডাকসুর সাবেক এই ভিপি বলেন, সরকার বিজয়ের সঙ্গে ইন্টিগ্রেটেড কোনো ম্যালওয়্যার ফোনে ঢুকিয়ে দিলে তা ফোনের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে নিতে পারে। এভাবে তারা ব্যবহারকারীর সকল বিষয়ের ওপর নজরদারি করতে পারবে। ফেসবুকের মতো সোশ্যাল মিডিয়া একাউন্টের পাসওয়ার্ড এমনকি ব্যক্তির ব্যাংক একাউন্ট, ক্রেডিট কার্ডের নিয়ন্ত্রণও তাদের হাতে চলে যেতে পারে। বিজয় কিবোর্ড ব্যবহার না করলেও ইনস্টল করলেই ম্যালওয়্যার ঢুকে যাবে।

মান্না বলেন, সরকার ইসরায়েলসহ বিভিন্ন দেশ থেকে নজরদারির প্রযুক্তি কিনছে। নির্বাচনকে সামনে রেখে এক বছর আগে সরকার বিরোধীদের তথ্য হাতিয়ে নিতেই বিজয় ইনস্টল করার নির্দেশ জারি করেছে। এটি জনগণের সাংবিধানিক অধিকার পরিপন্থী।

অসাংবিধানিক সরকার দেশের জনগণের সকল সাংবিধানিক অধিকার হরণ করে ফ্যাসিবাদ কায়েম করেছে। অবৈধ ক্ষমতা কুক্ষিগত করে রাখতে এখন নানা ফন্দি-ফিকির করছে।
অবিলম্বে বিটিআরসি’র বিজয় ইন্সটলের নির্দেশনা বাতিল করার দাবি জানিয়ে মান্না বলেন, কোনো মতলব-বাজি করে লাভ হবে না। বর্তমান ক্ষমতাসীনদের দেশের জনগণ যেমন বিশ্বাস করে না, আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলেও এই সরকার ঘৃণিত, স্বৈরাচার হিসেবে স্বীকৃত। এসময় ২০২৩ সালকে মুক্তির বছর উল্লেখ করে জনগণকে যুগপৎ আন্দোলন জোরদার করার আহবান জানান তিনি।




আরো






© All rights reserved © outlookbangla

Developer Design Host BD