মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৯:০০ পূর্বাহ্ন




প্রতি ৪ পথশিশুর একজন ধুমপায়ী, মাদকাসক্ত ১২ শতাংশ

আউটলুকবাংলা রিপোর্ট
  • প্রকাশের সময় : সোমবার, ১০ এপ্রিল, ২০২৩ ৭:১১ pm
International Children's day Children বিশ্ব শিশু দিবস বিশ্ব-শিশু-দিবস Children child labour child_labour শিশু শ্রমিকের শিশু শ্রমিক poverty Street children পথশিশু পথ শিশু পথশিশুরা শিক্ষা, স্বাস্থ্য পুষ্টিসহ নানা সুযোগ-সুবিধা থেকে বঞ্চিত
file pic

পথশিশুদের ১২ শতাংশই মাদকাসক্ত। আর প্রতি চার পথশিশুর মধ্যে ধুমপায়ী একজন। সোমবার (১০ এপ্রিল) রাজধানী ঢাকার আগারগাঁও পরিসংখ্যান ভবন মিলনায়তনে `পথশিশু জরিপ-২০২২’ এর প্রকাশিত ফলাফলে এ তথ্য উঠে আসে। বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (বিবিএস) পথশিশু জরিপ-২০২২ এর প্রকাশ করে।

ফল প্রকাশ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন পরিকল্পনা মন্ত্রী এম এ মান্নান। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ড. শামসুল আলম, পরিসংখ্যান ও তথ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগেরর সচিব ড. শাহনাজ আরেফিন। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বিবিএসের মহাপরিচালক মো. মতিয়ার রহমান। ইউনিসেফ বাংলাদেশের রিপ্রেজেন্টেটিভ শেলডন ইয়েট এর উপস্থিতিতে জরিপের চূড়ান্ত প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন বিবিএস-এর উপমহাপরিচালক কাজী নূরুল ইসলাম।

জরিপ ফলাফলে দেখা গেছে, পথশিশুদের ১২ শতাংশই মাদকাসক্ত। ধূমপান ও মাদক সেবনে ছেলেরা মেয়েদের চেয়ে এগিয়ে। পথশিশুদের মধ্যে ১৫ থেকে ১৭ বছর বয়সীরা ধুমপান ও মাদক গ্রহণে শীর্ষে, ১৫ থেকে ১৭ বছর বয়সীদের মধ্যে ধূমপান করে ৪০ দশমিক ১ শতাংশ আর এবং মাদক গ্রহণ করে ১৮ দশমিক ৭ শতাংশ।

জরিপ প্রকাশ অনুষ্ঠানে জানানো হয়, ঢাকা বিভাগে ৫ থেকে ১৭ বছর বয়সী ৪৮ দশমিক ৫ শতাংশ পথশিশু অবস্থান করছে। এর মধ্যে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে ২২ দশমিক ৭ শতাংশ এবং ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনে ১৮ দশমিক ৩ শতাংশের বসবাস। এসব পথশিশুদের মধ্যে ৮২ শতাংশ ছেলে এবং ১৮ শতাংশ মেয়ে। ১০ থেকে ১৪ বছর বয়সী পথশিশু রয়েছে ৫৪ শতাংশ।

ঘরে ফিরতে চায় না ৬৪ শতাংশ পথশিশু

ঘরে ফিরতে চায় না ৬৪ শতাংশ পথশিশু। আর ফিরে যাওয়ার মতো পরিবার নেই ১৫ দশমিক ৯ শতাংশ পথশিশুর। সোমবার (১০ এপ্রিল) রাজধানী ঢাকার আগারগাঁও পরিসংখ্যান ভবন মিলনায়তনে ‘পথশিশু জরিপ ২০২২’ এর প্রকাশিত ফলাফলে এ তথ্য উঠে আসে। বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (বিবিএস) পথশিশু জরিপ-২০২২ এর প্রকাশ করে।

জরিপ ফলাফলে দেখা গছে, এই শিশুরা পারিবারিক ও সামাজিক বাধাসহ বিভিন্ন কারণে পথশিশু হতে বাধ্য হয়েছে। পরিবারে জায়গা নেই ৩৬ দশমিক ৩ শতাংশ শিশুর। পরিবার গ্রহণ করে না ২১ দশমিক ৩ শতাংশ শিশুকে। আর পরিবারই নেই ১৫ দশমিক ৯ শতাংশ পথশিশুর। পরিবারে প্রতিকূল পরিবেশ ১২ দশমিক ৭ শতাংশ শিশুর। সামঞ্জস্যপূর্ণ পাবিবারিক পরিবেশ নেই ১১ দশমিক ৯ শতাংশ পথশিশুর। নির্যাতন ও নিপীড়নের শিকার ১১ দশমিক ৪ শতাংশ পথশিশু। পরিবারে কাজের চাপ রয়েছে ১১ শতাংশ পথশিশুর। আর ঘরে ফিরতে সামাজিক বাধা রয়েছে ৬ দশমিক ৭ শতাংশ শিশুর।

প্রায় চার ভাগের একভাগ পথশিশু ধূমপান করে এবং ১২ শতাংশ মাদকের নেশায় আসক্ত।

জরিপের ফল প্রকাশ অনুষ্ঠানে পরিকল্পনামন্ত্রী মন্ত্রী এম. এ. মান্নান বলেন, সব শিশুর সুস্বাস্থ্য নিয়ে বেড়ে ওঠা এবং নিরাপত্তা পাওয়ার অধিকার রয়েছে। আমরা পথশিশুদের খাবার দিয়েছি, দোলনা দিয়েছি। কিন্তু তারা থাকতে চায় না।

সরকার পথশিশুদের পুনর্বাসনে কাজ করছে, বেসরকারি পর্যায়ে তাদের পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করার উদ্যোগ নিতে পারে বলে উল্লেখ করেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম. এ. মান্নান।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, পথশিশুরা তাদের ইচ্ছেমতোত চলার স্বাধীনতা হারাতে চায় না। সে কারণে ঘরে ফিরতে চায় না অনেক শিশু।

জরিপের ফলাফলে দেখা গেছে, প্রধানত ৩৭ দশমিক ৮ শতাংশ পথশিশু দারিদ্রতার কারণে বাড়ি ছেড়ে শহরে এসেছে। এছাড়া ১৫ দশমিক ৪ শতাংশ বাবা-মা শহরে আসার কারণে এবং ১২ দশমিক ১ শতাংশ কাজের সন্ধানে বাড়ি ছেড়ে শহরে এসেছে। পথশিশুদের প্রতি ৫ জনের ২ জনই একা একা শহরে এসেছে।

পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, পরিবারে দারিদ্র্য এবং খাবারের অভাবেই মূলত পথশিশু হয়েছে তারা।




আরো






© All rights reserved © outlookbangla

Developer Design Host BD