বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৫:০৩ পূর্বাহ্ন




ঈদের ছুটিতে গ্রামে গিয়ে বিরোধে জড়ালে ব্যবস্থা নেবে পুলিশ

আউটলুকবাংলা রিপোর্ট
  • প্রকাশের সময় : সোমবার, ১৭ এপ্রিল, ২০২৩ ৭:১৫ pm
Bangladesh Police বাংলাদেশ পুলিশ
file pic

ঈদের ছুটিতে পরিবার-পরিজনের সঙ্গে আনন্দ ভাগাভাগি করতে গ্রামের বাড়িতে গিয়ে জমি-জমা বা পারিবারিক বিরোধের জেরে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করলে আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার হুঁশিয়ারি দিয়েছে পুলিশ। এ ব্যাপারে সবাইকে সতর্ক থাকার পরামর্শ দিয়েছে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী। এরইমধ্যে ঈদের ছুটিতে বাড়ি গিয়ে কেউ যেন কোনও বিরোধপূর্ণ কর্মকাণ্ডে জড়িয়ে না পড়ে পুলিশ সদর দফতর থেকে এ ব্যাপারে কার্যকর ব্যবস্থা নিতে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। পরিবারের সবার সাথে ঈদ উদযাপন করে সবাই সুস্থ-সবলভাবে আবারও কর্মস্থলে ফিরে আসবে এমনটাই প্রত্যাশা করছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

পুলিশ বলছে, ঈদের জামাতকে কেন্দ্র করে কোনও ধরনের বিরোধে না জড়ানোর পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। এছাড়া যারা ছুটি নিয়ে বিভিন্ন জায়গা থেকে গ্রামে যাবেন তারা নিজ ব্যবস্থাপনায় বাসাবাড়ির নিরাপত্তার ব্যবস্থা করে যাবেন। ঈদের ছুটিতে বা কোনও কারণে বাসা ছেড়ে গেলে নগদ অর্থ, স্বর্ণালংকারসহ অন্যান্য মূল্যবান সম্পদ—ব্যাংক বা আস্থাশীল কোনও জায়গায় রেখে যাওয়ার পরামর্শ দিয়েছে পুলিশ।

এছাড়া, ঈদের ছুটিতে রাস্তা বন্ধ করে, পিকআপ বা অন্য কোনও যানবাহনে উচ্চ শব্দে দলবদ্ধভাবে উল্লাস করা থেকে বিরত থাকতে বলা হয়েছে। ঈদের সময় দর্শনীয় স্থানে ভ্রমণের ক্ষেত্রে শালীনতা এবং শৃঙ্খলা বজায় রাখার পাশাপাশি নির্জন স্থানে বেড়ানো পরিহার করার পরামর্শ দিয়েছে পুলিশ। তারা বলছে, কোনও অবস্থাতেই অপ্রাপ্তবয়স্ক সন্তানদের হাতে মোটরসাইকেলের চাবি তুলে দেবেন না। এছাড়া ঈদের সময়ে ফেসবুক বা অন্য কোনও সামাজিক মাধ্যমে অপরিচিত বন্ধু-বান্ধবীর সাথে দেখা করা থেকে বিরত থাকতে পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

পুলিশ সদর দফতরের একজন কর্মকর্তা বলছেন, সারা দেশে ঈদকেন্দ্রিক নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করতে প্রতিটি জেলার পুলিশ সুপারকে (এসপি) নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। কেউ কোনও ধরনের অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডে যেন জড়াতে না পারে সেজন্য আগে থেকে গোয়েন্দা নজরদারি বাড়ানোর নির্দেশনাও দেওয়া হয়েছে। যেসব এলাকায় ঈদের সময় বিভিন্ন ধরনের অরাজক পরিস্থিতির সৃষ্টির ইতিহাস রয়েছে—সেগুলোকে গুরুত্বের সাথে নিতে সংশ্লিষ্টদের বলা হয়েছে। বিশেষ করে ব্রাহ্মণবাড়িয়া, কুমিল্লা, দিনাজপুর, পঞ্চগড়, রাজশাহীসহ বেশ কয়েকটি জেলায় বিশেষ নিরাপত্তামূলক ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার পুলিশ সুপার সাখাওয়াত হোসেন বলেন, শুধু ঈদকেন্দ্রিক নয় নানা কারণে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবাসহ বিভিন্ন এলাকার মানুষ নিজেদের মধ্যে বিরোধে জড়িয়ে পড়ে। তবে এ বছর ঈদকে সামনে রেখে কেউ যেন কোনও ধরনের অপরাধমূলক কর্মকাণ্ড করতে না পারে সে ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট থানাগুলোর অফিসার ইনচার্জকে সজাগ থাকার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। এছাড়া বিভিন্ন এলাকায় বিট পুলিশিং-এর সহায়তায় জমি-জমার বিরোধ কিংবা পারিবারিক বিরোধের বিষয়গুলো সম্পর্কে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী খোঁজ-খবর নিচ্ছে এবং সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নিচ্ছে।

নেত্রকোনা জেলার পুলিশ সুপার ফয়েজ আহমেদ বলেন, ঈদের ছুটিতে গ্রামে এসে কেউ যেন কোনও ধরনের বিশৃঙ্খলায় না জড়ায় সে ব্যপারে আমরা সতর্ক আছি। বিশেষ করে জমি-জমা কিংবা পারিবারিক বিরোধকে কেন্দ্র করে মারামারি-হানাহানিতে নিজেদের সম্পৃক্ত করতে না পারে সে ব্যাপারে আগে থেকেই সজাগ রয়েছি। জেলার প্রতিটি থানাকে সে অনুযায়ী নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

বগুড়া জেলার পুলিশ সুপার সুদীপ কুমার চক্রবর্তী বলেন, বিট পুলিশিং-এর মাধ্যমে স্থানীয়দের সচেতন করা হচ্ছে। এছাড়া গোয়েন্দা নজরদারি বাড়ানো হয়েছে। বিভিন্ন ধরনের তথ্য-সংগ্রহ করা হয়েছে। ঈদের ছুটিতে শহর থেকে গ্রামে এসে যারা পরিবারের সাথে ঈদ আনন্দ করবেন তারা যেন নির্বিঘ্নে ঈদ করতে পারেন—সে ব্যাপারে আমরা সচেষ্ট রয়েছি। সংশ্লিষ্ট সব বিষয় মাথায় রেখেই নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে বলে জানান পুলিশের এ কর্মকর্তা। [বাংলা ট্রিবিউন]




আরো






© All rights reserved © outlookbangla

Developer Design Host BD