রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪, ০১:১২ পূর্বাহ্ন




যা বললেন ‘বিদ্যুতের ফেরিওয়ালা’ কণ্ঠশিল্পী মমতাজ

আউটলুকবাংলা রিপোর্ট
  • প্রকাশের সময় : বুধবার, ৭ জুন, ২০২৩ ৬:১৬ pm
Momtaz Begum folk singer লোকগানের সংগীত শিল্পী মমতাজ বেগম
file pic

কিছু দিন ধরেই দেশে লোডশেডিং চলছে। বিদ্যুতের পর্যাপ্ত সরবরাহ না থাকায় অসহনীয় অবস্থায় কাটছে মানুষের দিন। এমন অবস্থায় জনপ্রিয় লোকশিল্পী ও সংসদ সদস্য মমতাজ বেগমের একটি পুরনো বক্তব্য সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল।

যেখানে তিনি বলেছিলেন, ‘ফেরিওয়ালারা যেমন ঘোরে আর বলে, চুড়ি রাখবেন নাকি ভাই, এরকম বিদ্যুতের অবস্থা আমাদের হবে। আমাদের ঘুরতে হবে, বিদ্যুৎ রাখবেন নাকি ভাই, বিদ্যুৎ…। তবু আমরা গ্রাহক খুঁজে পাবো না।’

সংসদ ভবনে দেওয়া পুরনো এই বক্তব্যের রেশ ধরে সম্প্রতি মমতাজের তীব্র সমালোচনা করছে নেটিজেনরা। সোশ্যাল মিডিয়ায় অনেকেই তাকে নিয়ে কটাক্ষ করছে, এমনকি তার বাড়ি ঘেরাওয়ের হুমকিও দিচ্ছে কেউ কেউ!

তাই আর চুপ থাকলেন না মমতাজ। চলমান বিতর্ক আর সেই বক্তব্যের ব্যাখ্যা দিলেন তিনি। মঙ্গলবার (৬ জুন) রাতে নিজের ফেসবুক পেজে একটি ভিডিও বার্তা দিয়েছেন মমতাজ। সেখানে বলেছেন, ‘বিদ্যুৎ থাকছে না, এই সমস্যায় আমরা সবাই কষ্ট পাচ্ছি। এটা একটা সাময়িক সমস্যা। সারা বিশ্বের যে অবস্থা, কিছু দিন আগে করোনা গেলো, এরপর রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ; এগুলো আমাদের অনেক ক্ষতির মুখে ফেলেছে। বড় বড় দেশই এই পরিস্থিতিতে হিমশিম খাচ্ছে।’

মমতাজের মতে, তার আসনে আগে ৩০ ভাগ মানুষ বিদ্যুতের আওতায় ছিল। তিনি নির্বাচিত হওয়ার পর সেটা শতভাগে উন্নীত করেছেন। তবে চলমান সংকটে ধৈর্য ধরতে আহ্বান জানিয়েছেন তিনি। পুরনো বক্তব্যের রেশ টেনে মমতাজের ভাষ্য, ‘যখন আমি এমন কথা বলেছিলাম, তখন সত্যি সত্যি আমাদের বিদ্যুতের অবস্থা ভালো ছিল। আমার আসনে শতভাগ বিদ্যুতায়ন করেছি। মানুষ খুশি হয়েছে। এখনকার এই সাময়িক পরিস্থিতি আমাদের ধৈর্যের সঙ্গে মোকাবিলা করতে হবে। সে জন্য সবারই ধৈর্য ধারণ করতে হবে। চেষ্টা করতে হবে, সহযোগিতা করতে হবে—কীভাবে বিদ্যুতের খরচ কমানো যায়, মোকাবিলা করা যায়। দোষারোপ করে, কাদা ছোড়াছুড়ি করে কোনও লাভ নেই। আমাদের ক্ষতিই হবে। অশান্তি বাড়বে।’

তার বক্তব্যটি নিয়ে ফেসবুকে নেতিবাচক চর্চার বিষয়ে মমতাজ বলেন, ‘ফেসবুকে হঠাৎ ঢুকেই দেখি একজন বলছে, মমতাজের বাড়ি ঘেরাও করা হয়েছে। কেন? বিদ্যুৎ পাওয়া যাচ্ছে না তাই! বলেন, এই যে প্রোপাগান্ডা, এই মিথ্যাচার, আপনাদের বিবেকে কি একটুও নাড়া দেবে না, শুধু শুধু একজন মানুষের বিরুদ্ধে এভাবে মিথ্যাচার কেন করছি! আপনাদের বিনীতভাবে অনুরোধ করছি, এই ধরনের প্রোপাগান্ডা থেকে বিরত থাকুন।’

মানিকগঞ্জ-২ আসনের সংসদ সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন মমতাজ। তিনি জানান, আগে গ্রামে গেলে প্রায়ই বিভিন্ন মানুষ বিদ্যুতের মিটারের অনুরোধ নিয়ে আসতো। তবে এখন সেই অবস্থা নেই। তিনি বলেছেন, ‘সত্যিকার অর্থে এখন গ্রামে গেলে কেউ বলেন না যে আপা দুইটা মিটার দেন, পাঁচটা মিটার দেন, বিদ্যুৎ লাইন দেন। মিটার দেওয়ার জায়গা তো খুঁজে পাওয়া যায় না। এটাই কিন্তু বাস্তব। আর সেই কথাটাই জাতীয় সংসদে আমি বলেছিলাম। সেটার ভুল ব্যাখ্যা দিয়ে, ভুলভাবে উপস্থাপন করে অসাধু কিছু লোকজন বাজে কথা ফেসবুক-ইউটিউবে বলার চেষ্টা করছেন। আমি তাদের বিনীতভাবে বলবো, আপনারা জ্ঞানী মানুষ হয়েও ভুল ব্যাখ্যা দিচ্ছেন, বাজেভাবে উপস্থাপন করছেন। দেখেন, আমার কথার সত্যতা আছে। আমি সঠিক সময়ে সঠিক কথাই বলেছিলাম। সাময়িক এ সমস্যা (অস্বাভাবিক লোডশেডিং) হবে, এটা আপনি-আমি কেউ জানতাম না।’

উল্লেখ্য, ২০০৯ সালে জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত মহিলা আসনে আওয়ামী লীগ থেকে সংসদ সদস্য মনোনীত হন মমতাজ। এরপর ২০১৮ সালে তিনি মানিকগঞ্জ-২ আসন থেকে নির্বাচিত হন।




আরো






© All rights reserved © outlookbangla

Developer Design Host BD