সোমবার, ০৪ মার্চ ২০২৪, ০৩:৩৬ অপরাহ্ন




মেট্রোরেলে প্রতিদিন ভ্রমণ করছে ১ লাখের বেশি যাত্রী

আউটলুকবাংলা রিপোর্ট
  • প্রকাশের সময় : শুক্রবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০২৩ ৯:১১ pm
Dhaka metro rail formal test run Dhaka Metro Rail ঢাকা মেট্রোরেল মেট্রোরেলের
file pic

উত্তরা-মতিঝিল মেট্রোরেলে (এমআরটি লাইন-৬) বর্তমানে প্রতিদিন এক লাখের বেশি যাত্রী ভ্রমণ করছে। গত ৫ নভেম্বর মতিঝিল পর্যন্ত ট্রেন চলাচল শুরুর পর থেকে উল্লেখযোগ্য হারে বেড়েছে যাত্রীর সংখ্যা। অন্যদিকে গত বছরের ডিসেম্বরে বাণিজ্যিকভাবে চলাচল শুরুর পর থেকে এখন পর্যন্ত মেট্রোরেলে ভ্রমণ করেছে ১ কোটি ৫১ লাখ যাত্রী। গতকাল এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানিয়েছেন ঢাকা ম্যাস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেডের (ডিএমটিসিএল) ব্যবস্থাপনা পরিচালক এমএএন ছিদ্দিক।

মেট্রোরেলে ভ্রমণ করা এসব যাত্রীর সিংহভাগই আগে পাবলিক বাসে যাতায়াত করত বলে তথ্য উঠে এসেছে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) এক গবেষণায়। ‘মডেলিং প্রিরিসিভড সার্ভিস কোয়ালিটি অব মেট্রোরেল অব ঢাকা সিটি ইউজিং স্ট্রাকচারাল ইকুয়েশন অ্যাপ্রোচ’ শীর্ষক গবেষণার তথ্য অনুযায়ী, বাস ছেড়ে মেট্রোরেলে এসেছে এমন যাত্রী ৫৯ দশমিক ৪১ শতাংশ। বাসের পর মেট্রোরেলে সবচেয়ে বেশি যাত্রী আসছে সিএনজিচালিত অটোরিকশা থেকে। জরিপে অংশ নেয়া ১৪ দশমিক ৯৬ শতাংশ যাত্রী জানিয়েছেন, মেট্রোরেল চালুর আগে তারা যাতায়াতের জন্য সিএনজিচালিত অটোরিকশা ব্যবহার করতেন।

একইভাবে মোটরসাইকেল বাদ দিয়ে মেট্রোরেল ব্যবহার করছে এমন যাত্রী ৬ দশমিক ৮ শতাংশ। আগে রিকশা ব্যবহার করত, বর্তমানে রিকশার বদলে এখন মেট্রোরেল ব্যবহার করছে ৫ দশমিক ৩ শতাংশ যাত্রী। প্রাইভেট কার ব্যবহার বাদ দিয়ে মেট্রোরেলে চলাচল করছে ৪ দশমিক ৫১ শতাংশ যাত্রী। আর ৬ দশমিক শূন্য ৮ শতাংশ মেট্রোরেল যাত্রী যাতায়াতের জন্য আগে রাইডশেয়ারিং সেবার মাধ্যমে প্রাইভেট কার বা মোটরসাইকেলের মতো বাহন ব্যবহার করত। এর বাইরে অন্যান্য যানবাহন ব্যবহার করত আরো ২ দশমিক ৯৩ শতাংশ যাত্রী।

সংবাদ সম্মেলনে ডিএমটিসিএলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক জানান, ১৩ ডিসেম্বর থেকে চালু হচ্ছে মেট্রোরেলের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও বিজয় সরণি স্টেশন। তবে আগারগাঁও-মতিঝিল অংশে ট্রেন চলাচলের সময় আপাতত বাড়বে না।

তিনি বলেন, ‘মেট্রোরেলের দ্বিতীয় অংশ (আগারগাঁও-মতিঝিল) গত ৪ নভেম্বর উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তখন আমরা একটা কর্মপরিকল্পনা দিয়েছিলাম, তিন মাসের মধ্যে সব স্টেশন চালু করব। সেটার ধারাবাহিকতায় ১৩ ডিসেম্বর থেকে আমরা দুইটা নতুন স্টেশন চালু করতে যাচ্ছি। স্টেশন দুটি হলো বিজয় সরণি ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। ১৩ তারিখ থেকে এ দুটি স্টেশনে ট্রেনগুলো যাওয়া ও আসার পথে যাত্রাবিরতি দেবে।’

এমএএন ছিদ্দিক বলেন, ‘আগারগাঁও-মতিঝিল অংশে ট্রেন চলাচলের সময়সূচিতে আপাতত কোনো পরিবর্তন আসছে না। আমাদের আরো দুটি স্টেশন চালু করা বাকি। একটি হলো কারওয়ান বাজার, আরেকটি শাহবাগ। এ দুটি স্টেশন চালুর পর আমরা উত্তরা থেকে মতিঝিল পর্যন্ত পর্যায়ক্রমে পূর্ণাঙ্গভাবে চালু করতে পারব।’

উত্তরা-মতিঝিল-কমলাপুরের মধ্যে নির্মাণাধীন মেট্রোরেল লাইন-৬-এর উত্তরা-আগারগাঁও অংশ গত বছরের ২৮ ডিসেম্বর উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী। বাণিজ্যিকভাবে ট্রেন চলাচল শুরু হয় এর পরদিন। বর্তমানে সকাল ৮টা থেকে রাত সাড়ে ৮টা পর্যন্ত এ অংশে ট্রেন চলাচল করছে।

অন্যদিকে গত ৪ নভেম্বর চালু হয় মেট্রোরেলের আগারগাঁও-মতিঝিল অংশ। বর্তমানে এ অংশে সকাল ৮টা থেকে দুপুর সোয়া ১২টা পর্যন্ত ট্রেন চলাচল করছে। মতিঝিল ও আগারগাঁওয়ের পাশাপাশি ট্রেনগুলো যাত্রাবিরতি দিচ্ছে ফার্মগেট স্টেশনে।

মেট্রোরেলের লাইনটি কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন পর্যন্ত সম্প্রসারণ করা হচ্ছে। এ অংশের নির্মাণকাজের অগ্রগতি ২০ দশমিক ৫ শতাংশ জানিয়ে ডিএমটিসিএলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক বলেন, ‘২০২৫ সালের জুনের মধ্যে উত্তরা থেকে কমলাপুর পর্যন্ত ট্রেন চলাচল শুরুর লক্ষ্য নিয়ে আমরা কাজ করছি।’

ডিএমটিসিএলের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, উত্তরার দিয়াবাড়ী থেকে কমলাপুর পর্যন্ত এমআরটি লাইন-৬-এর দৈর্ঘ্য ২১ দশমিক ২৬ কিলোমিটার। নির্মাণে ব্যয় হচ্ছে ৩৩ হাজার ৪৭২ কোটি টাকা। মেট্রোটি ব্যবহার করে প্রতি ঘণ্টায় ৬০ হাজার যাত্রী বিভিন্ন গন্তব্যে যাতায়াত করতে পারবে। প্রতিটি স্টেশনে বিরতি দিয়ে উত্তরা থেকে মতিঝিল পর্যন্ত যেতে একটি ট্রেনের সময় লাগবে প্রায় ৪০ মিনিট। মাঝের স্টেশনে যাত্রাবিরতি না দিলে উৎপত্তি থেকে গন্তব্যে যেতে প্রায় ১০ মিনিট সময় লাগবে।




আরো






© All rights reserved © outlookbangla

Developer Design Host BD